কোনোমতেই যেন রাষ্ট্র ওয়াজমাস্টারদের নিয়ন্ত্রণ করতে না পারে। – ফাহাম আব্দুস সালাম

কোনোমতেই যেন রাষ্ট্র ওয়াজমাস্টারদের নিয়ন্ত্রণ করতে না পারে।

য়েস অনেক ওয়াজমাস্টার পিওর বোকচোদ কিন্তু বোকচোদ হয়ে থাকতে পারাটা আপনার সাংবিধানিক অধিকার। আপনার ইচ্ছা হয় সারাদিন ব্রাJIল হুজুরকে নিয়ে ট্রল করুন। আজহারী সাহেবকে আহাজারি বলতে ইচ্ছা হয় বলুন। যে ট্রল করছে তাকে আপনার ইসলামোফোব বলতে ইচ্ছা হয় বলুন, নির্ভয়ে বলুন। এর মধ্যে থেকে কনসেনসাস গড়ে উঠবে। শ্রোতা নিজে ঠিক করবে কোন হুজুর গাছগাণ্ডু আর কোন হুজুর প্রকৃত জ্ঞানী মানুষ। শ্রোতাকে ম্যাচিউরড হওয়ার সুযোগ দিতে হবে – দিস ইজ আ জার্নি। কিন্তু রাষ্ট্রের কোনো অধিকার নাই এন্টারকোটিক হুজুরকে আটকানোর।

রাষ্ট্র যদি ইন্টারভীন না করে আমি মনে করি ধর্ম ও সমাজ – উভয়ের জন্যেই মঙ্গলকর।

কার্যত এই মুহূর্তে বাংলাদেশের রাষ্ট্রধর্ম আওয়ামীবাদ। এই ধর্মের যে কোনো ওয়াজও তো আপনি শোনেন – না কি? শেখ মুজিব পাকিস্তানে থেকে মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন এই ওয়াজ হজম করতে পারলে এন্টারকোটিক ওয়াজ শুনতে অসুবিধা কোথায়?

আমি সবসময় বলে এসেছি যেকোনো ধর্মের অনুসারীরা যদি ধর্ম মানার নামে যদি গাণ্ডু হওয়ার জন্যে কনশাস ডিসিশান নেয় – আমাদেরকে তা টলারেট করতে হবে এবং রাষ্ট্রের এই ক্ষেত্রে কিচ্ছু করার নেই।

আমি ওয়াজমাস্টারদের কথা বলার এবসোলুট স্বাধীনতা আপনার তাকে গালি দেয়ার এবসোলুট স্বাধীনতার পক্ষে।

ইসলাম, হিন্দু, আওয়ামীবাদ – প্রতিটি ধর্মের মানুষকে তাদের ধর্মপালনে পূর্ণ স্বাধীনতা দিতে হবে।

Faham Abdus Salam | উৎস | তারিখ ও সময়: 2020-01-30 05:58:04