সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায়বিচার — এই তিন আদর্শ বাস্তবায়নের জন্য গণ – ফরহাদ মজহার

সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায়বিচার — এই তিন আদর্শ বাস্তবায়নের জন্য গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র গঠনের প্রতিশ্রুতি সম্বলিত স্বাধীনতার ঘোষণার ভিত্তিতে জনগণ ঐক্যবদ্ধ ভাবে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে শামিল হয়েছিল এবং বিজয়ী হয়ে বাংলাদেশ কায়েম করেছে।

কিন্তু ইতিহাসের এই এক প্রহসন যে এই তিন আদর্শের বিপরীতে দিল্লির স্বার্থে বাংলাদেশে বিভক্তি ও বিভাজন জারি রাখা, সাংবিধানিক ভাবে একনায়কতন্ত্র কায়েম করা এবং মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের বিপরীতে যারা ফ্যাসিস্ট মতাদর্শ পোক্ত ও ইসলাম নির্মূলের রাজনীতি এই দেশে প্রবল রাখার জন্য মুক্তিযুদ্ধের তিন আদর্শের বিপরীতে বাঙালি জাতীয়তাবাদ, ধর্মনিরপেক্ষতা এবং সমাজতন্ত্র চাপিয়ে দেবার সংবিধান প্রণয়ন করেছে, যারা সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অনন্ত যুদ্ধে পাশ্চাত্য শক্তির সহকারী, আজ তাদের নেতৃত্বে জিয়াউর রহমানের দলকে ফ্যাসিস্ট রাষ্ট ব্যবস্থার বিরুদ্ধে লড়তে হচ্ছে।

ক্ষমতাসীনরা যে কোন মূল্যে নির্বাচনের নামে আরেকটি প্রহসনের নির্বাচন করতে চায়। তাদের শুধু দরকার আন্তর্জাতিক মহলে বৈধতা অর্জন এবং ফ্যাসিস্ট ব্যবস্থা আরও পোক্ত করা। এই প্রহসন মোকাবিলার জন্য ফ্যসিবাদ ও ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্র ব্যবস্থা বিরোধী প্রতিটি দলের উচিত নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধ ভাবে সকল শক্তি নিয়ে অংশগ্রহণ করা। প্রহসনের নির্বাচন — অর্থাৎ একতরফা নির্বাচনের খায়েশ বানচাল করে দেওয়া।

কিন্তু নির্বাচন বাংলাদেশের কোন সমস্যারই সমাধান নয়। বড়জোর এতোটুকুই তার ভূমিকা যে বাংলাদেশের সমস্যা সমাধানের জন্য যে বৃহত্তর গণ আন্দোলন গড়ে তোলা জরুরি বাস্তব পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে জনগণকে সংগঠিত করার দরকারে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ এখনকার সঠিক কৌশলগত পদক্ষেপ। অতএব নির্বাচনই শেষ কিম্বা রাজনীতিকে নির্বাচনসর্বস্ব প্রহসনে পরিণত হতে না দিয়ে কর্তব্য হচ্ছে নির্বাচনকে বৃহত্তর আন্দোলনের পরিণিত করা এবং তার পরিপ্রেক্ষিতে বিচার করা। নির্বাচনকে আগামি দিনের আন্দোলন সংগঠিত করবার জন্য রাজনৈতিক শর্ত তৈরি করার কৌশল হিশাবে দেখা। নির্বাচনকে বৃহত্তর আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচার ও যথাযথ কর্মসূচি ও পদক্ষেপ গ্রহণ করার ওপর বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ রাজনীতি নির্ভর করবে।

বলাবাহুল্য, বিএনপির জন্য বর্তমান জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের রাজনীতি ঝুঁকিপূর্ণ এবং বিপজ্জনক। প্রথমত এমন একজনের নেতৃত্ব বিএনপিকে স্বীকার করতে হচ্ছে অতীতে যিনি এক এগারো ও 'মাইনাস টু' বাস্তবায়নের সঙ্গে জড়িত। জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টে আন্তর্জাতিক পরাশক্তির আগ্রহের কারনও দুই 'ব্যাটলিং বেগাম'কে রাজনীতি থেকে চিরকালের জন্য অপসারণ। ফলে যে কোন মূহূর্তে ফ্রন্টের ভূমিকা 'মাইনাস টু' ভূমিকায় রূপ নিতে পারে।

নির্বাচনী তপশীল ঘোষণার মধ্য দিয়ে বোঝা যাচ্ছে বিএনপিকে নির্বাচন থেকে যে কোন মূল্যে দূরে রাখার চেষ্টা চলছে।

এই খায়েশ বানচাল করবার একমাত্র পথ হচ্ছে যে কোন শর্তে নির্বাচনে যাওয়া এবং নির্বাচনের মাঠে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে ভোটের বাক্স মোকাবিলা।

ফরহাদ মজহার | উৎস | তারিখ ও সময়: 2018-11-12 06:04:29