উন্নয়নের গল্প: – একেএম ওয়াহিদুজ্জামান

উন্নয়নের গল্প:

কুমিল্লায় ট্রাক উল্টে নিহত ১৩ শ্রমিকের মধ্যে সাতজনই নীলফামারীর দুটি বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী; যারা পড়ালেখার ফাঁকে ফাঁকে দিনমজুরি করে পরিবারকে সহযোগিতা করত।

সেলিমের মেজো ভাই শাহাজাদ বলেন, তাদের বাবা রিকশা চালান। তার আয়ে কোনোমতে চলে সংসার। তিন ভাইয়ের মধ্যে বড়জন বিয়ে করে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে আলাদা।

“আমি আর ছোট ভাই সেলিম বাবা-মায়ের সংসারে। পরিবারে অভাব-অনটনের মধ্যে আমরা দুই ভাই লেখাপড়া করি। বাবা সংসারের খরচ জোগালেও আমরা নিজেদের পড়ালেখার খরচ নিজেরাই জোগাই। কখনও আমি কখনও সেলিম কাজ করে টাকার দরকার হলে।”

‘জ্ঞানের আলো বাড়াতে গেলেও তার জীবনের আলো নিভে গেল’ বলতে বলতে তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন।

নীলফামারীর জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিন বলেন, নিহত ১৩ শ্রমিকের পরিবারের জন্য কুমিল্লার জেলা প্রশাসক ২০ হাজার টাকা করে পাঠিয়েছেন।

আসল উন্নয়নের গল্প হচ্ছে- একজন সচিব মোবাইল ফোন কেনার জন্য পান ৭৫ হাজার টাকা।

উন্নয়নের সাথেই থাকুন।

A K M Wahiduzzaman | উৎস | তারিখ ও সময়: 2019-01-27 19:32:17