এবারের বইমেলায় আমার প্রথম উইশ লিস্ট: – রেজাউল করিম ভূইয়া

এবারের বইমেলায় আমার প্রথম উইশ লিস্ট:
যদি দেশে থাকতাম এগুলা কিনতাম বা কিনতে বলতাম:
====
এক. হোমো স্যাপিয়ানস, রিটেইলিং আওয়ার স্টোরী।

–ডা. রাফান আহমেদের বই। বাংলায় ইভোলিউশনের ক্রিটিসিজমের একটি মৌলিক বই। একদম নাড়ী নক্ষত্র সহ। বেশ ভাল ধারনা পাবেন, বিজ্ঞান রিসার্চ সম্পর্কে। এবং অবশ্যই ইভোলিউশন সম্পর্কে।
===
দুই. বেলা ফুরাবার আগে

— আরিফ আজাদ ভাইর বই। মোটিভেশনাল, ইন্সপাইরেশনাল। যুবকদের জন্য।

মোটিভেশন দরকার, হতাশ হতাশ লাগে। আর আমি তো বোধ হয় এখনও হালকা যুবকই আছি, কি বলেন? ঠিক কিনা?

===
তিন. ডাবল স্ট্যান্ডার্ড -২, কুররাতু আইয়ূন -২

ডা. শামসুল আরেফীন ভাই র। শক্তি ভাইর লেখা আমার বেশ পছন্দ। একদম গোড়া থেকে বের করে নিয়ে আনেন, সমাজের সমস্যা, আর তার সমাধানের গাইডেন্স।
===
চার. হৃদয় জাগার জন্য

-ইয়াসমিন মোজাহেদ এর বই, মাসুদ শরীফ ভাই অনুদিত। বইটা পড়ার বেশ ইচ্ছা, কিন্তু বাংলায়। রিক্লেইমিং ইউর হার্ট এর অনুবাদ। বেশ সাড়া জাগানো বই এটা।

হৃদয়কে জাগানোর দরকার। খুব দরকার। দিন দিন হৃদয়গুলো মরে যাচ্ছে।
===

এইবার মানডেইন বই:

এক. কমুনিকেশন হ্যাকস

–আইমান সাদিক এর বই। মনে হয় কিভাবে কমুনিকেশন করতে হয়, তা লিখছে। দরকার দরকার খুব দরকার।

দুই. উড়ছে হাইজেনবার্গ

–শামীম মোন্তাজির । ভ্রমন কাহিনী। ভ্রমন কাহিনী পড়লে মন উদার হয়। মন বড় হয়। দুনিয়ার সব জায়গার ঘটনা জানা যায়। তাই এটাও।

তিন. থিংক অ্যান্ড গ্রো রিচ

— নেপোলিয়ান হিল, অনীশ দাস অপুর অনুদিত। বদ্ধচিন্তা থেকে বের হওয়া দরকার। চিন্তাশক্তি ইনক্রীজ করা দরকার।

চার. তিনটি সেনা অভ্যুত্থান ও কিছু না বলা কথা

—লে. কর্ণেল (অব:) এম এ হামিদ পিএসসি। বাংলাদেশের শুরুর দিকের ঘটনা জানতে আমি বরাবরই আগ্রহী। সেজন্যই এ রকম বইগুলো পড়া। ইতিহাস।
===

আবার ইসলামী বই:

এক. বি স্মার্ট উইথ মুহাম্মদ

–হিশাম আল আওয়াদির লেখা, মাসুদ শরীফ অনুদিত। এ বই নিয়ে যত বিতর্কই থাক, আমি তা পড়ে দেখতে চাই। আসলে এখানে রসূল(স) এর পারিবারিক জীবনে হাইলাইট করা হয়েছে, যেটা সাধারনভাবে এড়িয়ে যাওয়া হয়।

পারিবারিক জীবনটাও তো দরকার, দরকার না? অন্য অংশটা তো জানা যাচ্ছে অন্য সীরাত থেকে, এ অংশটা এটা থেকে জানলাম। সমস্যা কি?

দুই. রাহে বেলায়েত

— প্রয়াত ড. আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর এর লেখা বই। আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের উপায় আসলে্ । দরকার দরকার খুব দরকার।

তিন. শিকড়ের সন্ধানে

–হামিদা মুবাশ্বেরা। আমার শিকড় কি ? আমাদের দ্বীনের শিকড় কোথা হতে কোথায় এসে পৌঁছেছে? পড়িতে চাই, জানিতে চাই।

=====

আজ এ পর্যন্তই। পরে আবার লিস্ট হবে ইনশাআল্লাহ।

====
বইগুলো রকমারীতেই পাওয়া যায়। বইমেলার ওইখানে না গিয়ে অর্ডার দিলেও হবে। কাজেই সংশ্লিস্ট প্রকাশনী যদি স্টল নাও পায় বইমেলায়, তাহলে দুশ্চিন্তার কিছু নেই।
====
ছোট্ট একটি কথা: আমরা অনেকেই ডিসট্রাক্টেড। ফোকাস ধরে রাখতে পারিনা। কারন ফেবুক-ইউটিউব।
কাজে ফোকাস আনার একটা ভাল উপায় হল: বই পড়া, একমনে।
সকালে ঘুম থেকে উঠে চা খেয়ে বসবেন, বসে বসে বই পড়বেন সারাদিন। কম্পিউটার স্ক্রীন খারাপ, বইয়ের স্ক্রীন আসলে দরকার।

হার্ডকপিতে দীর্ঘক্ষণ পড়লে ফোকাস বৃদ্ধি পায়। সফটকপি ভালনা।

ফোকাস বাড়ানোর সময়: ফেব্রুয়ারী মাস। বই কিনুন, বই পড়ুন। হার্ডকপি পড়ুন।

===

M. Rezaul Karim Bhuyan | উৎস | তারিখ ও সময়: 2020-02-06 10:04:49