গোরু আমাদের ভিত্তি, গোবর আমাদের ভবিষ্যত: – রেজাউল করিম রনি

গোরু আমাদের ভিত্তি, গোবর আমাদের ভবিষ্যত:

গতবারের ভরতের পাক্ষিক 'দেশ' এর পূজা সংখ্যায় সুবোধ সরকারের 'গোরু' নামে একটি কবিতা ছাপা হয়েছে। প্রথম লাইন আগে পড়ে নেই…

“গোরু আমাদের ভিত্তি, গোবর আমাদের ভবিষ্যত”

– এটা কবিতার শুরুর লাইন। আর এটাই হল আমাদের শত্রুর চেয়ে ভয়ংকর বন্ধু ভারত ও আমাদের নিজেদের অবস্থা।

দেশে লুটপাট এবং সাধারণ মানুষের উপর অত্যাচার একটি সাংগঠনিক রুপ নিয়েছে এই সরকারের আমলে। জিনিসপত্রের দাম নিয়া যা চলছে তা সাবই জানেন। রোহিঙ্গাদের পথমে বুকে টেনে এখন ছুড়ে ফলার আয়োজন চলছে। যদিও বিদেশীদের দেয়া সাহয্য ও ত্রাণ কোথায় যাচ্ছে তাও অজানা নয়। এর পরেও কথা আছে, যাকে বাংলাদেশের বেশির ভাগ মানুষ অবৈধ মনে করেন। সরকার প্রধান হিসেবে কোন মেনডেট দেয় নাই যাকে, তিনি যখন বলেন ১৬ কোটিরে খাওয়াই, আরও ১০ লাখ খাওয়াতে পারব। তখন আসলে হাসারও শক্তি থাকে না। এটা কি ধরণের অহংকার?
আর খন বলছে, রোহিঙ্গারা বোঝা।
বাংলাদেশের মানুষ তাকে ক্ষমতা ও রিজিকের মালিক মনে করে না। পুলিশ আর বিকৃত চেতনার মাধ্যমে এই ক্ষমতা চির দিন টিকে থাকবে না।
দেশে র্দুভিক্ষ চলছে। সব জায়গায় লাগাম ছাড়া ফি, টেক্স্ দিতে দিতে মানুষ অতিষ্ট। ভ্যাট/কর জুলুমের পর্যায়ে আছে। যারা ব্যবসা করেন তারা এটা বুঝতে পারছেন। এই সব টাকা কই যায়? আর তিনি নাকি খাওয়াচ্ছেন? তো এই কথাকে কি ভাবে ব্যাখ্যা করবেন? জটিল ব্যাখ্যায় যেতে হবে না। নিচের লাইনেই এর ব্যাখ্যা আছে…

সুবোধের কবিতার মাঝ খানের কয়েটি লাইন এমন…

“কাকে বলে ফ্যাসিজম? আপনার দুটো গোরু আছে
সরকার আপনার দুটোকেই নিয়ে নিলো
তার দুধ আপনাকেই বিক্রি করল।”
………………
“গোরু আমাদের ভিত্তি, গোবর আমাদের ভবিষ্যত
কিন্তু আমি এ কথা মানি না।”
২.
একটি আলোচিত মামলা হয়েছিল গতবছর। বিজেপি নেতা ও দলটির অন্যতম মুখপাত্র এডভোকেট অশ্বিনী কুমার উপাধ্যায় দাবি তুছেন,
'অবৈধ রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশিদের' বের করে দিতে হবে ভারত থেকে। এবং তাদের জামিন অযোগ্য আসামি হিসেবে চিহ্নিত করতে হবে।
বাংলাদেশ ছোট দেশ হলেও বিশাল ভারতের জন্য ৫ম রেমিটেন্স সরবরাহকারী দেশ- বাংলাদেশ। তো একটা দাবি কি উঠতে পারে না এখন- আমাদের দেশে যত “অবৈধ ভারতীয়” আছে সব বের করে দিতে হবে। এবং তারাও আমাদের নিরাপত্তার জন্য হুমকি।
কেন না, গোরু যার ভিত্তি, গোবর যার ভবিষ্যত তার বন্ধুত্ব তো দূরের কথা, সহবতে আমাদের সব কিছু নষ্ট হোক এটা কে চাইবে?

Rezaul Karim Rony | উৎস | তারিখ ও সময়: 2019-09-24 00:11:14