যদি একজন হলিউড বি গ্রেডের এ্যাক্টর শ্রেফ নামের জোরে ভুলভালে দেশ চালায়ে ইকোনমি ধ্বসায়ে, সো – ইমতিয়াজ মির্জা

যদি একজন হলিউড বি গ্রেডের এ্যাক্টর শ্রেফ নামের জোরে ভুলভালে দেশ চালায়ে ইকোনমি ধ্বসায়ে, সোভিয়েত রাশিয়ার পতন ঘটায়ে আমেরিকার সবচে জনপ্রিয় রিপালিকান প্রেসিডেন্ট হতে পারে তাহলে বার্নী ডেমোক্রেটিক সোস্যালিস্ট হিসাবে প্রেসিডেন্ট হতে পারবে।

যদি একজনের বাপ মুসলমান, নামের মাঝে হুসেন সহ, রাজনৈতিক ভাবে পরিপক্ক না হওয়া সত্ত্বে সবচে দারুন ক্যাম্পেইন চালায়ে আমারিকার প্রথম কালো প্রেসিডেন্ট হতে পারে,
বার্নীও তাহলে ডেমোক্রেটিক সোস্যালিস্ট হিসাবে আমারিকার প্রথম জুইশ প্রেসিডেন্ট হতে পারবে।

যদি একজন ক্লাউন, নামী ধান্ধাবাজ, রাজনীতিতে বিন্দু মাত্র অভিজ্ঞতা বা সংযোগ না থাক সত্ত্বেও, রিয়েলিটি টিভি স্টার হয়ে,
অর্থ কেলেংকারী, নারী কেলেংকারী ইত্যাদি থাকা সত্ত্বে কম ভোট পেয়ে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হয়ে দ্বীতিয় নির্বাচিত হবার স্বপ্ন দেখতে পারে তাহলে বার্নীও আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হতে পারে।

আমেরিকা দেশটাই এমন যে বিচিত্র টাইপের লোকজন তারা নেতা হিসাবে পছন্দ করে। একমাত্র আমেরিকা বলেই এই লোকগুলো প্রেসিডেন্ট হতে পেরেছে। অন্য কোন দেশ হলে এতো সহযে সম্ভব হতো না।

বার্নীকে নাকি সোস্যালিস্ট/কমি বলা হবে!! এখন এই জুজু দেখানো শুরু করেছে লজিক আর ডেটা গাই থেকে ফ্যাক্ট এন্ড ফিগার গাই হওয়া লোকজন।
বার্নীর বিরুদ্ধে মেইনস্ট্রিম মিডিয়া এমন কিছু করে নাই বা ডেমোক্রেটিক স্টেবিলিশমেন্ট এমন কোন বাজে প্রচারানা চালায় নাই যেটা রিপাবলিকানরা নতুন করে চালাবে।
কমিউনিস্ট আর সোস্যাল ডেমোক্রেটদের মাঝে দিনরাত তফাত।
যখন বার্নী নমিনি হবে , ডেমোক্রেটিক পার্টি আর মেইনস্ট্রিম মিডিয়া নিজের গরযে কমিউনিস্ট আর সোস্যাল ডেমোক্রেসির পার্থক্য বুঝাবে সাধারন মানুষকে। আমারিকা নিজেরই অনেক সোস্যালিস্ট প্রগ্রাম আর সোস্যালিস্ট পলেসি আছে সেগুলো দেখাবে মানুষকে।

অনেক চেষ্টা করা হচ্ছে এইবার ঠেকায় রাখতে কিন্তু এবার মনে হয় আর বার্নীকে ঠেকায় রাখতে পারবে না। বাইডেন কিছুটা চ্যালেঞ্জ দিয়েছিলো, ব্লুমবার্গ কিছুটা হেডেক দিবে।
নমিনেশন বার্নীই পাবে যদি জোচ্চুরী করে তাকে না হারানো হয়। সমকামী পিট বুটেজেজ আর এ্যামি ক্লোবেচারের কালো বা ল্যাটিনো ভোটেরের সাপোর্ট নাই। এছাড়া সেন্ট্রিস্ট ভোট ভাগ ভাগ হয়ে গেছে অনেক প্রার্থী থাকার কারনে। তাই এরা সাদা স্টেস্ট গুলোতে বার্নীর কাছাকাছি আসলেও, কালো আর বাদামি স্টেস্ট গুলো গো হারা হারবে।

মজার ব্যাপার হচ্ছে বার্নীই একমাত্র প্রার্থী যে আগের নির্বাচনে তো বটেই এই বার বড়ো সরো কনজারভেটিভ ভোট পাবে।
মানুষ পলেসি দেখে ভোট দেয়। বাংলাদেশের মতো মার্কা দেখে ভোটায় না। পলেসি পছন্দ হলে সুইং ভোটাররা তো বটেই, কনজারভেটিভরা বার্নীকে ভোটাবে।

বার্নীর একমাত্র সমস্যা নমিনেশন পাওয়া, নমিনেশন পেলে সে রাস্ট বেল্ট স্টেট গুলো, সুইং টেস্ট গুলোতে ট্রাম্পকে নাকানিচুবানি খাইয়ে হারাবে।

Imtiaz Mirza | উৎস | তারিখ ও সময়: 2020-02-13 09:03:17