বিকল্পধারা বাংলাদেশ "স্বৈরতান্ত্রিক" ব্যবস্থার সরকারের অবসান – একেএম ওয়াহিদুজ্জামান

বিকল্পধারা বাংলাদেশ “স্বৈরতান্ত্রিক” ব্যবস্থার সরকারের অবসান চেয়ে অনেক কথা বলেছে। তাদের নেতা রাজনৈতিক দলের তৃণমূলের কর্মীদের “টোল কালেক্টর” বলে ছোট করেছে। বিভিন্ন দলের গণতন্ত্র চর্চা নিয়েও লেকচার দিয়েছে।

এবার তাদের কিছু কার্যকলাপ আর বক্তব্যের নমুনা দেইঃ

জাতীয় ঐক্যের একটি বৈঠক ছিল ডঃ কামাল হোসেনের বাসায়, পরে স্থান বদল করে করা হয় তাঁর চেম্বারে। সেখানে তাদেরকে আসতে বলা হয়। তারা জানায় তারা আসবে না এবং সাথে সাথে আলাদা সংবাদ সম্মেলনের ডাক দেয়।

দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের একটা অংশ জাতীয় ঐক্যে যোগ দেয়ার পক্ষে কথা বলায় এবং আলাদা সংবাদ সম্মেলনে বাদ সাধায় তাদেরকে স্বৈরতান্ত্রিক উপায় প্রায় একক সিদ্ধান্তে বহিষ্কার করা হয়। যাদের মধ্যে আছেন, বিকল্পধারা বাংলাদেশের সহ-সভাপতি শাহ আলম বাদল ও কৃ‌ষিবিষয়ক সম্পাদক জা‌নে আলম হাওলাদার‌।

বিকল্পধারার সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহ আলম বাদল সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘বি চৌধুরী ও মাহি বি চৌধুরী মিলে যা করছেন তা গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা বিকল্পধারা থেকে বেরিয়ে এসে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

এর প্রেক্ষিতে মাহী বি চৌধুরী বলেন, ‘বিকল্পধারায় বদরুদ্দোজা চৌধুরী, মাহী বি চৌধুরী ও মেজর মান্নান ছাড়া আর কারও নেতৃত্ব আছে নাকি? বিকল্পধারায় এই তিনজনই যথেষ্ট। দলে আর কী ভাঙন আসবে?’

আমার প্রশ্ন, যারা নিজেদেরকে ছাড়া দলের আর কাউকে নেতাই মনে করে না, যারা নিজেদের দলের মধ্যে কোন দ্বিমত সহ্য করতে পারে না, যারা তৃণমূলের কর্মীদের অপমান করে, তারা কিভাবে নিজেদের স্বৈরতান্ত্রিক ব্যবস্থা থেকে মুক্তির অগ্রদূত মনে করে?

A K M Wahiduzzaman | উৎস | তারিখ ও সময়: 2018-10-13 19:38:35