আজকে একটা আর্গুমেন্ট দেখলাম যে গড এক্সিস্ট করে এটার প্রমাণ হচ্ছে, আমরা শুধু সেটা – এএসএম ফখরুল ইসলাম

আজকে একটা আর্গুমেন্ট দেখলাম যে গড এক্সিস্ট করে এটার প্রমাণ হচ্ছে, আমরা শুধু সেটা সম্পর্কে কথা বলতে পারি যেটা আমরা এক্সপেরিয়েন্স করেছি। আমরা যা এক্সপেরিয়েন্স করিনি সেটা সম্পর্কে আমরা কথা বলতে পারি না। যেহেতু আমরা গডকে নিয়ে কথা বলছি তার মানে আমরা গডকে এক্সপেরিয়েন্স করেছি।

এটার জবাবে নাস্তিকদের উত্তর হচ্ছে, আমরা আসলে গডকে এক্সপেরিয়েন্স করিনি। অগমেন্ট করি। অর্থাৎ, আমরা আমাদের এক্সপেরিয়েন্সকে অগমেন্ট করে (বাড়িয়ে-চাড়িয়ে) গডের রূপ দেই। যেমন, আমরা শক্তিমানকে অগমেন্ট করে বানিয়েছি সর্বশক্তিমান। জ্ঞানীকে অগমেন্ট করে বানিয়েছি সর্বজ্ঞানী।

এর জবাবে বা এই আলোচনায় আস্তিকদের আরেকটা যুক্তি হচ্ছে, আসলে আমাদের পক্ষে গডকে নিয়ে কথা বলা সম্ভব না। কারণ আমরা কখনো অ্যাবসলিউট পারফেকশন এক্সপেরিয়েন্স করিনি। যেহেতু আমরা অ্যাবসলিউট পারফেকশন এক্সপেরিয়েন্স করিনি সেহেতু গডকে বোঝাও আমাদের পক্ষে সম্ভব না।

এই আলোচনায় আমি নাস্তিকদের যুক্তি ফলো করতে পারলেও আস্তিকদের যুক্তি ফলো করতে গিয়ে মাথা হ্যাং হয়ে গিয়েছে। এটা প্রায়শই হয়ে থাকে। নাস্তিকদের সাথে সমানে সমান ফাইট দেয়ার মনোবাসনায় আকস্মিকভাবে যুক্তির পাবন্দী হবার অভিনয় করতে গিয়ে আস্তিকরা যে দৃশ্যের অবতারণা করে এটি বেশ উপভোগ্য হয়।

দেখবেন, বইমেলায় যুক্তি দিয়ে ধর্ম ব্যাখ্যা করা বইয়ের কদর বেড়ে গেছে। দুই দিন বা দুই মিনিট আগেও যুক্তিকে গণধোলাই দেয়া ভেড়ার পালেরা হঠাত ভাবতে শুরু করেছে যুক্তি দিয়ে নাস্তিকদের এক হাত দেখিয়ে দেয়া হয়েছে। কিন্তু সেই যুক্তির বইতে কি যুক্তি দেয়া হয়েছে এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তাঁদের মুখ থেকে একটি শব্দও বের হবে না। বরং সেসব যুক্তির প্রতিযুক্তি উপস্থাপন করতে শুরু করলে তাঁরা পুনরায় “যুক্তিই সকল নষ্টের গোড়া” যুক্তিতে ফিরে যাবে।

স্মার্ট আস্তিকের আকালের চেয়ে বড় আতংকের ব্যাপার হচ্ছে, এই আকালের ব্যাপারটা উপলব্ধি করার মত মেধা বেশিরভাগ আস্তিকের নাই। তাঁদের সেল্ফ-সার্ভি, উইশফুল বিশ্বাস, যুক্তির ময়দানে তাঁরা প্রচন্ডরকম খেলছে!

Asm Fakhrul Islam | উৎস | তারিখ ও সময়: 2020-03-24 20:21:41