আমি কন্সপিরিসি থিওরীতে বিশ্বাসী মানুষ, – ইমতিয়াজ মির্জা

আমি কন্সপিরিসি থিওরীতে বিশ্বাসী মানুষ,
আমি মনে করি জেএফকে এর মৃত্যুর পিছনে আমেরিকার গোয়ান্দা সংস্থা আর মাফিয়ার হাত আছে, আমি মনে করি ভিয়েতনামের যুদ্ধ বাধানো হয়েছিলো একটা মিথ্যার মাধ্যমে, আমি মনে করি ইরাকের যুদ্ধ বাধানো হয়েছিলো কুয়েতের কূটনৈতিকদের মিথ্যার মাধ্যমে, আমি মনে করি ৯/১১ এর পেন্টাগনের হামলা চালানো বিমানটা সন্ত্রাসীদের কোন বিমান ছিলো না, আমি মনে করি ৯/১১ সন্ত্রাসীদের পরিচয় পাওয়া যাওয়া পাসপোর্ট জলন্ত প্লেন থেকে কোটি টন ধ্বংসস্তুপের ভিতর থেকে মোটামুটি অক্ষত অবস্থায় পাওয়া গেছিলো তা ভুয়া, আমি মনে করি বিল্ডিং সেভেনের ধ্বসে পড়ার পিছনে অফিস ফায়ার ছিলো না, আমি মনে করি বাংলাদেশে প্রচলিত ক্রসফায়ার আর গুম হত্যা গুলোর পিছনে সরকারী সংস্থা গুলো দায়ী।

এই রকম অনেক কন্সপিরিসিতে আমি বিশ্বাস করি। যেগুলো ভ্যালিড মনে হয় । তবে আমি এটাও জানি যে কিছু কিছু মানুষ কন্সপিরিসিতে ভর করে চলে, সাম্প্রদায়িকরা কন্সপিরিসিতে বিশ্বাস করে, কিছু মানুষ বিশ্বাস করে পৃথিবী সমতল, কিছু মানুষ বিশ্বাস করে ব্রিটিশ রাজবংশ গিরগিটির বংশধর। এইরকম অকাট মূর্খের সংখ্যা পৃথিবীতে প্রচুর। আপনার আশেপাশেই এদের পাবেন।

বহুকাল আগে ন্যাপস্টার নামে একটা এ্যাপ ছিলো যেখানে আমি গান নামাতাম। সেখানে ফ্রিতে হাজার হাজার গান নামানো যেতো।
তবে রেকর্ড কোম্পানী গুলো সেগুলো ঠেকানোর জন্য নিজেরাই মিউজিক দেয়ার শুরু করলো যেগুলো ৩ সেকেন্ড পর গারবেজ নয়েজ দিয়ে ভর্তি। সেসব গান লাখ লাখ মানুষের মাঝে ছড়ায় পড়লো।

আমার মনে হয় পৃথিবীর সব গুলো গোয়েন্দা সংস্থা নিজেরাই এসব কন্সপিরিসি থিওরী প্রস্তুত করে যেগুলো পড়ে ভুয়া প্রমানিত হয় আর মানুষ হাসতে হাসতে বলতে পারে আরে সব কন্সপিরিসি থিওরীই ভুয়া।

এনি হাউ, একটা জরুরী ব্যাপারে কথা বলার জন্য এই প্রসংগের অবতারনা। সেটা হলো চায়নার বিরুদ্ধে, আমেরিকা, আমেরিকা ব্লকের সব দেশ, ইন্ডিয়া উঠে পড়ে লাগসে প্রপাগান্ডা নিয়ে যে চায়নার উহানের ভাইরোলজি ল্যাব থেকে ভাইরাস ছড়িয়েছে।

এখানে বলে নেয়া ভালো চায়নিজ গর্ভমেন্ট আমেরিকা গর্ভমেন্ট আর সিআইএ মতো ক্ষতিকর পৃথিবীর জন্য। হয়তো আরো খারাপ। তারা প্রথম থেকেই তথ্য লুকিয়েছে। তারা অনেক আগেই এই মহামারী উহানেই থামাতে পাড়তো। তাদের গাফলতির কারনে এখন সারা বিশ্বে ৬৫ হাজার মানুষ মারা গেছে আর এর পড়ে ইকোনমিক ডাউন টার্নে আরো হাজার হাজার মানুষ মারা যাবে, কোটি কোটি মানুষ সাফার করবে।

চায়নিজ গর্ভমেন্ট পৃথিবীর দুষ্টক্ষত কিন্তু আসলেই কী চায়না জীবানু অস্ত্র তৈরি করছিলো।
খুবই মুখরোচক কন্সপিরিসি থিওরি। এবং সম্ভবও । এই ব্যাপারে নিশ্চয় মিলিটারি ইন্টেলিজেন্স গবেষনা করে পৃথিবীর সেরা সেরা দেশ গুলোতে।

যে জায়গা খটকা লাগলো যে এগুলো ছড়াচ্ছে কারা। বাংলাদেশে রিপোর্ট পড়লাম এটা ছড়াচ্ছে বিডি প্রতিদিন। অসংখ্য আরো মিডিয়া পোর্টাল এগুলো কভার করেছে। বিডি প্রতিদিন খুব রিলায়েবল কোন সোর্স না।

কিন্তু সেটা মূল ব্যাপার, বিডিপ্রতিদিন তাদের চিন্থিত অনুবাদ ভিত্তিক নিউজ করতে গিয়ে দাড়ি কমা সহ কভার করেছে।

খুজতে গিয়ে দেখি সেটা ব্লেইজ টিভি। যেটা চরম ট্রাম্প সমর্থক চরম ধরনের স্টুপিড মানুষ দের দ্বারা পরিচালিত। যারা ইমিগ্রান্ট আর অশ্বেতাঙ্গদের ঘৃণা করে। সরাসরি সেগুলো প্রচার করে। তাদের ৯৯ শতাংশ রিপোর্ট মিথ্যা থাকে।

এরপর দেখলাম একটা ভিলগের উপর ভিত্তি করে সেটা বানানো হয়েছে।
এই ভিলগার আমার খুব পরিচিত। চায়নাতে থাকে চায়নিজ বউ বিয়ে করেছে আর হিটের জন্য সে মাঝে মাঝেই অবিশ্বাস্য ক্লিক বেইট নিউজ বানায়, নিজের বউকে নিজের ছেলেকে ব্যবহার করে বেশী সাবস্ক্রাইবার জমিয়ে টাকা কামানোর জন্য।

চায়নার ল্যাবরটরীতে ভাইরাস নিয়ে গবেষনার সময় এটা ছড়িয়েছে কিনা আমি জানি না, আমি জানি না চায়না জীবাণু অস্ত্র তৈরি করছিলো কিনা বা সেটা নেহাত একটা ভাইরোলজি গবেষনে কেন্দ্রে ছিলো।
আমি যেটা জানি সেটা হলে গবেষকরা প্রমান পেয়েছে এটা প্রাণী দেহ থেকেই এসেছে।
আর আমি খুব ভালো করেই জানি ব্লেইজ টিভি ওয়ালারা আর এই ভিলগর কী পরিমান মিথ্যা বলে ক্ষমতা আর টাকার জন্য।

কন্সপিরিসি থিওরীতে বিশাসী হলেও এটুকু জানি যারা মিথ্যা বলে, জাতঘৃণা করে, প্রপাগান্ডা ছড়ায় আর টাকা কামানোর জন্য বাদুরের মুত খেতে পারে তাদের থেকে কন্সপিরিসি কেন, ওয়াদার রিপোর্টও আমি বিশাস করবো না।

এটার জন্য সামান্য একটু কান্ডজ্ঞানই যথেষ্ট।
#করোনাডাইরীজ #কন্সপিরিসিথিওরী

Imtiaz Mirza | উৎস | তারিখ ও সময়: 2020-04-05 12:52:05