বাংলাদেশ ভারতের মত দেশের নোংরা রাজনীতিবিদদের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হলো দায়িত্ব না – জাহিদ রাজন

বাংলাদেশ ভারতের মত দেশের নোংরা রাজনীতিবিদদের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হলো দায়িত্ব না নেয়া। দেখবেন সফলতা সব আমার ব্যর্থতা অমুকের।

আমাদের মেগাস্টার সাকিব আল হাসান আমাদেরকে আমেরিকা থেকে জানাচ্ছেন যে তার খামারটি আপাতত চালাচ্ছেন তার কো-অউনাররা। এজন্য কার বেতন দেয়া হয়েছে কার দেয়া হয়নি এটি তিনি জানেন না। ব্যাপারটা এখানে শেষ নয়। রাজনীতিবিদদের মতো তিনি মনে করেন- মাত্র হাতেগোণা কয়েকজনের বেতন দেয়া বাকি ছিল এবং এদের সাথে চুক্তি ছিল এপ্রিলের শেষে বেতন পরিশোধ করা হবে।

কয়েক মাস আগে বিসিবির চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটার হওয়ার পরেও বিসিবির বিরুদ্ধে আন্দোলনের আগে কিন্ত তিনি বিসিবের প্রধানকে ফোন করেন নাই (এবং রাইটলি সো)। কিন্ত শ্রমিকের বেলায় অন্য আইন- আগে আলোচনা করতে হবে। শ্রমিকের যে সংখ্যাটা অল্প বলে তিনি আমাদেরকে জানাচ্ছেন, আন্দোলনরত ক্রিকেটাররা সঙ্খ্যায় কত ছিলেন ? আপনাদের মতো শ্রমিকের ত এন্ডোরসমেন্ট নাই কিন্ত বাসায় বউ বাচ্চা আছে।

স্বীকার করে নিলে পারতেন যে কাজটা ভুল হয়েছে । এটা না করে তিনি আমাদেরকে জানাচ্ছেন- এটা তৃতীয় কোন পক্ষের চক্রান্ত। মিডিয়া এটাকে ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে বড় করে তুলেছে।

শ্রমিকের পাওনা বেতন না দিয়ে এখন আসছে ব্যাট বেইচা মানবতা দেখাইতে। কয়দিন আগে এক নারীমুক্তি নেত্রীকে দেখেছিলেন না বাসার কাজের মানুষকে প্রহার করতে ? এই মানবতাবাদীদের ক্রিকেটীয় ভার্সন আমাদের সাকিব।

সাকিব আমাদেরকে জানাচ্ছেন-” জাতি হিসাবে আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি বর্তমান সংকটকে সামনে রেখে আমাদের আরও গুরুত্বপূর্ণ কাজ করা প্রয়োজন এবং যেকোন ধরণের বিভ্রান্তিকর তথ্য, গুজব এবং মিথ্যার বিরুদ্ধে সজাগ ও সোচ্চার হওয়া দরকার।”

কি পরিচিত মনে হচ্ছে না ? সাকিবের উচিত দ্রুত রাজনীতির কোন পদে যোগ দেয়া। হাসান মাহমুদ, ওবায়দুল কাদেরর যোগ্য উত্তরসূরি হতে পারবেন তিনি।

Jahid Razan | উৎস | তারিখ ও সময়: 2020-04-22 14:56:12