মনে করেন গ্যাস লিক হয়ে নারায়ণগঞ্জে মসজিদে আগুন না ধরে ইসকনের মন্দিরে আগুন ধরলো – আমান আবদুহু

মনে করেন গ্যাস লিক হয়ে নারায়ণগঞ্জে মসজিদে আগুন না ধরে ইসকনের মন্দিরে আগুন ধরলো, তাহলে কি হতো?

আগুন ধরতো না। কারণ তিতাস গ্যাসের কর্মচারীর সাহসই হতো না পঞ্চাশ হাজার টাকা ঘুষ চাওয়ার। সে দ্রুত গ্যাস লিক ঠিক করে দিতো।

যদি কোন বেকুব কর্মচারী না জেনে না বুঝে ঘুষ চেয়েই ফেলতো, তাহলে সেদিনই তার উর্ধ্বতন অফিসার তাকে ধাতানি দিতো। তারপর গ্যাস লিক ঠিক হয়ে যেতো।

যদি উর্ধ্বতন অফিসার না দেয়, তাহলে ওসি প্রদীপ তাকে কেলানি দিতো। তারপর গ্যাস লিক ঠিক হয়ে যেতো।

সুতরাং নব্বই শতাংশ নিশ্চিত যে গ্যাস লিক থাকতো না, আগুনও ধরতো না।

তারপরও মনে করা যাক, কোন কারণে দশ শতাংশ বাস্তবে ফলে গেলো। আগুন ধরে গেলো। মানুষ মারা গেলো।

প্রথমেই একাত্তর টিভি দৌড়াতো জঙ্গি হামলার তদন্ত করার জন্য।

সাংবাদিক ইলিয়াস হোসেন সহ অনেক ফেইসবুকার ইউটিউবারের একদফা ময়নাতদন্ত হয়ে যেতো।

এটাই সত্য হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়ে যেতো। আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় প্রচুর দেশের নাম রৌশন হতো। সম্ভাবনা নব্বই শতাংশ।

তারপরও মনে করা যাক কোন কারণে এবারও দশ শতাংশ বাস্তবে ফলে গেলো। খবরে প্রকাশ হলো, গ্যাস লিকের কারণে আগুন।

তখন পুরো ফেইসবুক টিভি পত্রিকায় আর্তচিৎকার আত্মধিক্কার ও গভীর বিশ্লেষণের বন্যা বয়ে যেতো। দেশের সমস্ত প্রগতি ও আধুনিকরা নিজ নিজ এঙ্গেল থেকে অন্তত একবার হলেও চেহারা দেখানোর চেষ্টা করতো।

ভাড়তিয় দুতাবাসের কর্মকর্তারা অকূস্থল পরিদর্শনে যেতো।

সবাই প্রশ্ন করতো, আমরা কি এমন দেশ চেয়েছিলাম? স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর পরও অবকাঠামোগত ত্রুটির এ দায়ভার কে নেবে? তবে কি কোন নীলনকশা রয়েছে এ ঘটনার পেছনে? পর্দার আড়ালে ওরা কারা ষড়যন্ত্র করছে মুক্তিযুদ্ধেরর স্বপক্ষের শক্তির সরকারকে ব্যর্থ প্রতিপন্ন করতে?

তিতাস গ্যাসের বড় বড় অফিসার বরখাস্ত হতো। তাদের মাঝে কোন অফিসার ছাত্রজীবনে শিবিরের কর্মী ছিলো সেই চাঁদার হলুদ রঙের রশিদ ভাইরাল হতো।

সরকারী কোটি টাকা অনুদান হতো, নতুন আলীশান মন্দিরের জন্য।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী শোকাবহ কণ্ঠে বলতো, এ ঘটনার জন্য দোষীদের কঠোর শাস্তি হবে।

ইলিশবাবুর শোক যেতে না যেতেই আবার শোক। প্রথমালু হেডলাইন করতো, জাতি আজ শোকে স্তব্ধ!

উৎস । তারিখ: 2020-09-06 07:21:23

16 thoughts on “মনে করেন গ্যাস লিক হয়ে নারায়ণগঞ্জে মসজিদে আগুন না ধরে ইসকনের মন্দিরে আগুন ধরলো – আমান আবদুহু”

  1. কি অবলীলায় বাস্তব সত্যটা বলে ফেললেন ভাই। আর আমরা তো এমন কিছু অন্তরে ধারণ করলেও নতুন কোনো আইন প্রয়োগ করে জাস্ট উধাও করে দিবে। মাঝে মাঝে ভাবি আমরাও একরকম উইঘুর মুসলিমের মতো কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্পে বাস করছি নাতো!

  2. আরেকটা পয়েন্ট মিস করছেন, হাসাও মাহমুদের বিএনপি জামায়াত ষড়যন্ত্রর ভাংগাঢোলটা বাজানো হত

  3. Meer Salman হযরত আপনার তাকি উসমানী (দাঃবাঃ) সেই লেখার ব্যাখা এখানেও পেলাম – কেন বাংলাদেশে বর্তমানে সম্ভব নেই…!

  4. বাস্তবতা

    আর জনপ্রতি ক্ষতিপূরণের ব্যাপারটা চট্টগ্রামের একটা কোলখানি অনুষ্ঠানে পদদলিত হয়ে মারা যাওয়াদের থেকে আন্দাজ করতে পারছি

  5. হাসাও মাহমুদ বলতো ‘আগুন লাগিয়ে নাশকতা শুরু করেছে বিএনপি, খালেদা জিয়া এর দায় এড়াতে পারে না’- এই লাইনটা বাদ পরছে।

  6. ভাইয়া এটা নতুন আইডি নাকি আনফ্রেন্ড করে দিসিলেন। আপনার লেখা নিয়মিত পড়তাম। কিন্তু অনেকদিন যাবত টাইমলানে আসে নি।

Comments are closed.